ঐতিহ্যবাহী আকবরিয়া হোটেল; প্রতিদিন ৪০০/৫০০ জনের মুখে খাবার তুলে দেয়

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত অক্টোবর ৭, ২০২০
ঐতিহ্যবাহী আকবরিয়া হোটেল; প্রতিদিন ৪০০/৫০০ জনের মুখে খাবার তুলে দেয়

বগুড়া।
দারুণ গোছালো এক শহর। বলা হয়—বগুড়া বাংলাদেশের থার্ড লার্জেস্ট সিটি। ঢাকা ও চট্টগ্রামের পর দেশের অন্যতম সেরা শহর।
এই শহরে একটা অসাধারণ ঘটনা ঘটে প্রতি রাতে।
আকবরিয়া হোটেল। বগুড়া শহরে গেলে এই হোটেলের নাম অবশ্যই শুনে থাকবেন। ১০৯ বছর আগে প্রতিষ্ঠিত এই হোটেল এক অনন্য মানবিকতার চর্চা করে যাচ্ছে।
এই হোটেল তুমুল ব্যবসা করে নিঃসন্দেহে। আমরা শহরে গেলে আকবরিয়া হোটেলে খেয়ে গর্বিত হই। ঐতিহ্যবাহী এই হোটেলের খাবার কতটা সুস্বাদু তা গ্র‍্যাহ্যের মধ্যে আনি না; বিবেচনা করি তাদের বুকের ভেতরের দরদী মনকে।
আকবরিয়া হোটেল ১০৯ বছর ধরে বগুড়া শহরের ভিক্ষুক কিংবা অসহায় ক্ষুধার্ত মানুষকে প্রতি রাতে রাতের খাবার খাওয়ায়, সুবহানাল্লাহ।
আপনি কল্পনা করুন—১০৯ বছর ধরে এই কাজটা করছে আকবরিয়া হোটেল। যত ক্ষুধার্ত সেখানে সমেবেত হয়, প্রত্যেকের জন্য খাবারের ব্যবস্থা করে। পঁচা-বাসি খাবার নয়; রান্না করে গরম খাবার। ভিক্ষুকরা সারাদিন ভিক্ষা করে রাতের খাবার এখানে ফ্রি-তে খেয়ে বাসায় ফিরেন। অনেক দরিদ্র রিক্সা-ভ্যান শ্রমিক এখানে রাতের খাবার খেয়ে কিছু টাকা সেভ করেন। ভাসমান মানুষজন এখানে রাতে খায়। প্রতিদিন ৪০০/৫০০ জনের মুখে খাবার তুলে দেয় আকবরিয়া কর্তৃপক্ষ।
তাদের আরেকটা দারুণ সেবার কথা জানাতে চাই।
বগুড়া শহরের আশেপাশের মসজিদের ইমাম, মুআজ্জিন ও খাদেমদের অধিকাংশের জন্যই আকবরিয়া হোটেলের পক্ষ থেকে তিনবেলা ফ্রি খাবারের ব্যবস্থা করা হয়।
পিতা আলহাজ্ব আকবর আলী মিয়ার মানবিক সংস্কৃতি সন্তানরা আজতক চালিয়ে নিচ্ছে। আকবরিয়া গ্র‍্যান্ড হোটেলের ব্যবসা কমছে না তাতে, প্রতিদিন বাড়ছে।
দুনিয়াবাসী জানুক—আজকের এই সময়ে দাঁড়িয়েও এক ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠান মানুষের জন্য ভাবে।