সৈয়দ মবনু’র আত্মকথা

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত অক্টোবর ১৩, ২০২০
সৈয়দ মবনু’র আত্মকথা

আমার সাথে আপনার দ্বি-মত হতে পারে। আপনি আমার উপর নারাজ হতে পারেন। আমার আশপাশে কিংবা আপনজনেও অনেক আছেন, যারা আমার উপর নারাজ এবং আমাকে গালি দেন। কিন্তু কেন? কারণ, আমার কোন একটি বক্তব্য তার মনের মতো হয়নি, কিংবা তার দলের বিরুদ্ধে চলেগেছে। তবে এমন নয় যে আমার কোন বক্তব্যই তাঁর মনে ধরেনি। অবশ্য এমন নয় যে সবগুলোর সাথে তার দ্বি-মত। কিছু বক্তব্য আছে তাঁর বা তাদের মনের মতো। এটা সবদিকে, সব গ্রুপের আপনজনদের মধ্যে পাওয়া যাবে। আমি তাদেরকে বলতে চাই, তারা আমার উপর নারাজ না হয়ে বরং আমার সাথে কথা বললে উপকৃত হতেন। আমি কোন দল করিনা। ধর্ম, বর্ণ, অঞ্চল নিয়েও আমার সীমাবদ্ধতা নেই। আমি মনে করি মানুষ আমার, আমি মানুষের। অবশ্য অনেকে খারপ ভাষায় গালিও দেন, হুমকি দেন, শাসন করেন। কারো প্রতি আমি নারাজ নয়। কারণ তাদের বুঝের অভাব। সবাইকে আমি ভালোবাসি। কেউ ভুল করছেন মনে হলে কথা বলি। যার পক্ষে যায় তিনি বাহ বাহ করেন এবং যার বিরুদ্ধে যায় তিনি রাগ করেন, রাগ দেখান। তবু আমি কথা বলি আমার ভালোবাসা থেকে।
স্মরণ রাখবেন, প্রকৃত অর্থে আমি সত্য ছাড়া কোন পক্ষে নয়। থাকতেও চাই না। কেউ গালি দিলে আমার কোন ক্ষতি হয় না, কারণ কারো গালিতে আমি ছোট হই না। বরং আমার কষ্ট হয় তার জন্য যে গালি দেয়। কারণ বোতলে সুগন্ধি না দুর্গন্ধি তা স্পষ্ট হয় মুখ খুললে। মানুষের ভেতরের শিক্ষা অন্য মানুষ বুঝতে পারে হয় জবান কিংবা কলমের বিনিময়। গালি হলো মানুষের ভেতরের দুর্গন্ধ। তাই যে গালি দিলো মূলত সে তার নিজের দূর্গন্ধ প্রকাশ করলো।
আমি প্রাণের ভয় করি না, কারণ প্রাণ দেওয়া-নেওয়ার মালিক আল্লাহ। কেউ যদি আমাকে হত্যার হুমকি দেয় এতে আমার ভয়ের কিছু নেই। কারণ, বাবা আদম থেকে আমার দাদা পর্যন্ত কেউ বেঁচে নেই। বাবাও জীবন মৃত্যুর মধ্যখানে। তিনিও মরবেন, আমিও মরবো, আমার ছেলে, নাতি প্রমূখ হয়ে বংশ পরক্রমায় কিয়ামত হবে সবাই মারা যাওয়ার পর। অনন্তকাল বাঁচবো না কেউ। আমি ইজ্জতের ভয় করিনা, কারণ আল্লাহ মানুষকে ইজ্জত দেন এবং বেইজ্জত করেন। আমি তো ছিলাম সেই নাপাক জল, যা নিষ্কাশনে মা এবং বাবার গোসল করে পবিত্র হতে হয়েছে। অতঃপর ডিম্ব থেকে সৈয়দ মবনু কারো প্রেম, কারো ঘৃণা, কারো কাছে ইজ্জতের, কারো কাছে বেইজ্জতের পাত্র হয়েছি। আমি কোনটারই প্রত্যাশি নই। আমি আকাশের দিকে চেয়ে সবসময় নুর জালালের সেই গানের কথা ভাবি,’ আমি তোমায় ভালোবাসি / মন্দ বলে পাড়াপড়শি/ বলে বলুক যার যা খুশি/ আমি শুনবো না/ আমি তো জানি গো বন্ধু তুমি আপনা।’
অর্থ, পদ, পদবি কোনদিনও আমার কাছে মোহনীয় নয়। তাই এসব প্রাপ্তি কিংবা ত্যাগে আমার কিছু আসে যায় না। আমি বিশ্বাসী মানুষ, বিশ্বাস রাখি, ‘আল্লাহ যাকে ইচ্ছা তাকে বেহিসাব রিজেক দান করেন।’
আমি রিজেক বলতে শুধু খাদ্যকে মনে করি না। জীবনের সুখ-শান্তি, পদ-পদবী,মান-ইজ্জত, এমন কি হায়াতও রিজেকের অংশ। আমি মনের দিকে বাদশা, আমার হারানোর যেমন কিছু নেই, তেমনি পাওয়ারও কিছু নেই। কারণ, আমি সসীম, আমি চাইলে কিছু করতে পারবো না, যদি অসীম না চায়। আমি আমার সীমাবদ্ধতা যখন বুঝতে পারলাম তখনই সবকিছু ছেড়ে দিলাম অসীমের চরণে। আমার মনে সবসময় কাকুতি করে নিজের লেখা এই পঙক্তিগুলো,’ কিবা ধন আছে আমার করিবো বিতরণ/ দুই হাতে ধরি আল্লাহ আমি তোমার চরণ/ চরণেরও বিখারি গো আইছি তোমার দুয়ারে/ ফিরাইও না তুমি মাওলা মুহাম্মদের খাতিরে।’