পম্পেই নগরীতে ২০০০ বছর আগে ভিসুভিয়াসের অগ্নুৎপাতে নিহত ধনী মনিব ও তার দাসের দেহাবশেষ উদ্ধার

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত নভেম্বর ২৩, ২০২০
পম্পেই নগরীতে ২০০০ বছর আগে ভিসুভিয়াসের অগ্নুৎপাতে নিহত ধনী মনিব ও তার দাসের দেহাবশেষ উদ্ধার

শহরের উপকণ্ঠে খনন কাজের সময় এই দুটো দেহাবশেষ উদ্ধার করা হয়।ছবির উৎস,EPA
ছবির ক্যাপশান,
শহরের উপকণ্ঠে খনন কাজের সময় এই দুটো দেহাবশেষ উদ্ধার করা হয়।

প্রায় দুই হাজার বছর আগে আগ্নেয়গিরির অগ্নুৎপাতে ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল প্রাচীন রোমান শহর পম্পেই।

প্রত্নতাত্ত্বিকরা এই শহরের উপকণ্ঠ থেকে ওই অগ্নুৎপাতের সময় নিহত দুই ব্যক্তির দেহাবশেষ উদ্ধার করেছে যাদের একজন উচ্চ শ্রেণি মর্যাদার এবং অন্য ব্যক্তি তার দাস ছিল বলে ধারণা করা হচ্ছে।

পম্পেই এর প্রত্নতত্ত্ব পার্কের পরিচালক মাসিমো ওসান্না বলেছেন, “সেসময় তারা হয়তো অগ্নুৎপাতের হাত থেকে বাঁচার জন্য কোন আশ্রয় খুঁজছিল এবং পালিয়ে যাওয়ার সময় তারা লাভার স্রোতে ভেসে গেছে।”

মাউন্ট ভিসুভিয়াস থেকে ৭৯ খৃস্টাব্দে অগ্নুৎপাতের কারণে পম্পেই শহরটি পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গিয়েছিল।

এসময় গোটা শহর ছাই-এর নিচে ডুবে যায়।

প্রত্নতাত্ত্বিকরা বহু বছর ধরেই এই শহরে গবেষণা চালিয়ে আসছেন।

প্রাচীন এই শহরের উপকণ্ঠে খনন কাজ চলার সময় এমাসেই ওই দুটো দেহাবশেষের সন্ধান পাওয়া যায়।

তিন হাজার বছর পর মমির কণ্ঠে স্বর দিলেন বিজ্ঞানীরা

কর্মকর্তারা বলছেন, ধনী ব্যক্তিটির বয়স হবে ৩০ থেকে ৪০। তার গলার নিচে গরম উলের কাপড়ের চিহ্ন পাওয়া গেছে।

দ্বিতীয় ব্যক্তির বয়স হবে ১৮ থেকে ২৩। কর্মকর্তারা বলছেন, তার মেরুদণ্ডের অংশ পরীক্ষা করে ধারণা করা যায় যে তিনি কায়িক পরিশ্রম করতেন এবং একজন দাস ছিলেন।

“তাদের মুষ্টিবদ্ধ হাত ও পা দেখে বোঝা যায় যে তারা পুড়ে গিয়ে বা প্রচণ্ড তাপে মারা গেছে,” বলেন মি. ওসান্না।

তিনি বলেন, এই দুটো দেহাবশেষ উদ্ধারের মাধ্যমে অগ্নুৎপাতের ব্যাপারে দারুণ সব তথ্য পাওয়া গেছে।

ওই স্থানে খনন কাজ অব্যাহত রয়েছে। এলাকাটি ইতালির নেপলস শহরের কাছে।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে এলাকাটি পর্যটকদের জন্য বন্ধ রয়েছে।