ঢাকা-শিলিগুড়ি রেল: নতুন সংযোগে ভারতীয়দের কী লাভ?

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ২৬, ফেব্রুয়ারি, ২০২১, শুক্রবার
ঢাকা-শিলিগুড়ি রেল: নতুন সংযোগে ভারতীয়দের কী লাভ?

ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের আরও একটি নতুন রেল পথ চালু হওয়ার কথা রয়েছে ২৬শে মার্চ। পশ্চিমবঙ্গের উত্তরাঞ্চলীয় শিলিগুড়ি থেকে ঢাকা পর্যন্ত ওই ট্রেন সপ্তাহে দু’দিন করে চলবে বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

এই ট্রেনটি চালু হলে পশ্চিমবঙ্গ, সিকিমে যেমন বাংলাদেশী পর্যটকরা বড় সংখ্যায় অনায়াসে আসতে পারবেন, তেমনই সিকিম এবং পশ্চিমবঙ্গের উত্তরাঞ্চলের মানুষদেরও বাংলাদেশ যেতে সুবিধা হবে।

পর্যটন শিল্প এই ট্রেনটি নিয়ে আশাবাদী হলেও পশ্চিমবঙ্গের উত্তরাঞ্চলীয় অথবা সিকিমের মানুষ কতটা এই ট্রেনে চেপে বাংলাদেশে আসতে পারবে, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে।

কারণ, শিলিগুড়িতে বাংলাদেশের কোনও ভিসা কেন্দ্র নেই, তাই ভারতীয় পর্যটকদের এই ট্রেনে চাপতে গেলে কলকাতায় গিয়ে ভিসা করিয়ে তারপরে শিলিগুড়ি ফিরে এসে ট্রেন ধরতে হবে।

শিলিগুড়ির অ্যাসোসিয়েশন ফর কনজারভেশন অ্যান্ড ট্যুরিজমের আহ্বায়ক রাজ বসু বলছিলেন, “আমরা তো আশা করছি এই নতুন ট্রেনে দু’দেশ থেকেই বহু মানুষ যাতায়াত করবেন, কিন্তু একটা সমস্যা হচ্ছে যে ভিসা করাতে যেতে হবে কলকাতায়। তারপর এখানে এসে ট্রেন ধরা যাবে।”

কলকাতায় বাংলাদেশের উপ রাষ্ট্রদূত তৌফিক হাসান বিবিসিকে বলেছেন, “একবার শিলিগুড়িতে একটা ভিসা কেন্দ্র করার কথা উঠেছিল, কিন্তু তা নিয়ে আর এগুনো হয় নি। অতীতে কয়েকবার ভিসা শিবির সেখানে করা হয়েছিল – কিন্তু এখন মেশিন পাঠযোগ্য ভিসা হয়ে যাওয়ার ফলে বেশ ভারি যন্ত্র লাগে। সেগুলো বয়ে নিয়ে গিয়ে শিবির করা বোধহয় সম্ভব হবে না।”

কিন্তু ভবিষ্যতে যদি ভিসা আউটসোর্সিং করে দেওয়া হয়, তাহলে একটা সমাধানের পথ বেরতে পারে বলে মনে করেন মি. হাসান।

ভারত আর বাংলাদেশের রেল কর্মকর্তাদের মধ্যে এক বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়েছে যে শিলিগুড়ি সংলগ্ন বড় স্টেশন নিউ জলপাইগুড়ি বা এনজেপি থেকে যাত্রা শুরু করে ট্রেনটি প্রথম ৮৪ কিলোমিটার পথ ভারতের মধ্যে দিয়ে আর বাকি ৪৪৬ কিলোমিটার পথ বাংলাদেশের ভেতর দিয়ে যাবে।

তারপর বাংলাদেশের চিলাহাটি, নীলফামারী, পার্বতীপুর, হিলি, নাটোর ঈশ্বরদী আর টাঙ্গাইল হয়ে ট্রেন পৌঁছবে ঢাকায়।

এনজেপি স্টেশন থেকে সোমবার আর বৃহস্পতিবার দুপুরে ছাড়বে এবং রাত ১১টায় ঢাকা পৌঁছবে। ওই দিনই রাতে ঢাকা থেকে ফিরতি পথে ট্রেনটি ভারতের দিকে রওনা হবে।

পশ্চিমবঙ্গের উত্তরাঞ্চল এবং সিকিমে যারা পর্যটন শিল্পে সঙ্গে জড়িত, তারা এই নতুন রেলপথ নিয়ে বেশ উচ্ছ্বসিত।

হিমালয়ান হসপিটালিটি এবং ট্যুরিজম ডেভেলপমেন্ট নেটওয়ার্কের সাধারণ সম্পাদক সম্রাট সান্যাল বলছিলেন, “আমরা দীর্ঘদিন ধরেই এই অঞ্চলের সার্ক দেশগুলোর মধ্যে পর্যটন আরও জনপ্রিয় করে তোলার কথা বলছিলাম নানা ফোরামে। এই ট্রেনটি সেই দিশাতেই এগোনর প্রথম ধাপ।

পর্যটক সাম্প্রতিক কালে দার্জিলিং-ডুয়ার্স বেড়াতে আসেন। এর মধ্যে সিকিমেও বাংলাদেশী নাগরিকদের যাওয়ার ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এতদিন তাদের ফুলবাড়িতে আন্তর্জাতিক সীমান্ত পেরিয়ে আসতে হত। এখন তাদের অনেক সুবিধা হয়ে যাবে।”

“ওদিক থেকে যেমন পর্যটক আসবেন, এদিক থেকেও বহু মানুষ বাংলাদেশ যেতে চান। তারাও এখন সরাসরি ঢাকায় পৌঁছে যেতে পারবেন। এটা খুবই ভাল সিদ্ধান্ত,” মন্তব্য মি. সান্যালের।

পরিচিত পর্যটন কেন্দ্রগুলি ছাড়াও এখন বহু নতুন পর্যটন কেন্দ্র গড়ে উঠছে দার্জিলিং পাহাড়ে এবং হোটেল ছাড়াও হোম-স্টে’র ব্যাপক প্রচলন হয়েছে।

সিকিমের রুমটেক বৌদ্ধবিহার পর্যটকদের আকর্ষণ করে।
ছবির ক্যাপশান,
সিকিমের রুমটেক বৌদ্ধবিহার পর্যটকদের আকর্ষণ করে।

তাই বহু বাংলাদেশী পর্যটক এই অঞ্চলে বেড়াতে আসছেন আজকাল – যদিও করোনা সংক্রমণের জন্য গতবছর প্রায় কেউই আসেন নি।

আবার দার্জিলিং পাহাড় এবং সিকিমের বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের কাছেও বাংলাদেশের সোমপুর মহাবিহার, মহাস্থানগড় এবং মুন্সিগঞ্জের বজ্রযোগিনী বিশেষভাবে আকর্ষণীয় হয়ে উঠবে বলে মনে করেন রাজ বসু।

তার কথায়, “এই অঞ্চলের বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা যেভাবে বোধগয়া বা নালন্দায় যান, সহজেই এখন তারা সোমপুর মহাবিহার বা মহাস্থানগড় – এসব বৌদ্ধ তীর্থ ক্ষেত্রে যেতে পারবেন। আবার অনেকেরই ইচ্ছা থাকে ঢাকার কাছে বজ্রযোগিনী গ্রামে অতীশ দীপঙ্করের জন্মস্থান দেখে আসতে। এছাড়া ঢাকা, চট্টগ্রাম, কক্সবাজারের মতো পরিচিত পর্যটন স্থানগুলো তো আছেই।”

পশ্চিমবঙ্গের উত্তরাঞ্চলের বহু মানুষের পূর্বপুরুষ পূর্ববাংলা থেকেই চলে এসেছিলেন – কেউ চা বাগান, কেউবা রেলে চাকরি করতে। তাদের উত্তরপুরুষদের মধ্যে নিজের শেকড়ের খোঁজে বাংলাদেশ যাওয়ার ভালোরকম উৎসাহ আছে বলে মনে করেন মি. বসু।

“এছাড়া যাকে কালিনারি ট্যুরিজম বলা হয়, বাংলাদেশের নামকরা সব খাবার চেখে দেখতে বা সেখানকার মানুষদের যে আতিথেয়তার কথা আমরা শুনেছি, তার আস্বাদ নিতেও অনেকে সেদেশে যেতে চান। তাদের পক্ষেও সরাসরি ট্রেন অনেকটাই সুবিধা করে দেবে,” বলছিলেন রাজ বসু।

সম্রাট সান্যালের কথায়, “পর্যটন শিল্প তখনই সফল হয়, যখন দু’দিক থেকেই পর্যটক আসবেন বা যাবেন।”

তাই এই নতুন ট্রেনে যাতায়াত দু’দেশের মানুষের কাছেই সুবিধাজনক করতে শিলিগুড়িতে বাংলাদেশের ভিসা ব্যবস্থা করা আশু প্রয়োজন বলেই মনে করছেন পর্যটন শিল্পের সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা।

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন