ঈশ্বরগঞ্জে তিন বছরের শিশু খুন, বড় বোন গ্রেফতার

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ২৬, ফেব্রুয়ারি, ২০২১, শুক্রবার
ঈশ্বরগঞ্জে তিন বছরের শিশু খুন, বড় বোন গ্রেফতার

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার সদর ইউনিয়নের চর হোসেনপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। তেরো বছর বয়সের বড় বোন পৌনে তিন বছর বয়সের ছোট বোনকে ঘুমন্ত অবস্থায় বটি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে।

বাড়ির পেছনে টয়লেটের ট্যাংকির ভিতর থেকে পাওয়া যাই লাশ খবর পেয়ে পুলিশ এসে উদ্ধার করেছে এবং হত্যায় অভিযুক্ত বড় বোনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

জানা যায়, উপজেলার ওই গ্রামের মোড়ল বাড়ির বাসিন্দা মো. শহীদুল্লাহ পেশায় একজন ইজিবাইক চালক। তার চার মেয়ে এক ছেলে। বড় দুই মেয়ে ও এক ছেলে বাইরে থাকে। বাড়িতে থাকে দুই মেয়ে। এদের মধ্যে লাকির বয়স ১৩ ও ছোট বোন জান্নাতুল ফেরদৌসের বয়স প্রায় ৩ বছর। আজ বৃহস্পতিবার দুপুর একটার দিকে ছোট মেয়েকে ঘুম পাড়িয়ে তাদের মা পাশের বাড়িতে যান।

বাবা আগে থেকেই পেশাগত কাজে বাইরে ছিলেন। বিকাল চারটার দিকে তারা দুজন বাড়ি ফিরে দুই মেয়ের মধ্যে কাউকে দেখতে পাননি। তারা সন্তানদের খোঁজখুঁজি করতে থাকেন। এক পর্যায়ে বড় মেয়েটিকে প্রতিবেশীর বাড়িতে পেয়ে তাকে ছোট বোনের কথা জিজ্ঞেস করেন।

এক পর্যায়ে ঘরের পাশে একটি প্লাস্টিকের বালতির মধ্যে রক্ত দেখতে পাওয়া যায়।

পরে তাদের জিজ্ঞাসাবাদে বাড়ির পেছনে টয়লেটের ট্যাংকির ভিতরে ছোট বোনের লাশ দেখিয়ে দেয় লাকি। সেখান থেকে পরিবারের লোকজন লাশ উদ্ধার করে বাড়ির উঠানে রাখে। খবর পেয়ে পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার ও অভিযুক্ত বড়বোনকে থানায় নিয়ে যায়।

পরিবারের লোকজন জানায়, জান্নাাতুল জন্মের পর থেকে লাকি কিছুটা রাগান্বিত ছিল। মা-বাবা জান্তাতকে কাছে রাখা ও আদর সে কোনোভাবেই মেনে নিতে পারেনি। মাঝে মধ্যে সে (লাকি) রাগও করতো। ধারনা করা হচ্ছে লাকির আদরে ভাগ বসানোয় মনে করে এবং সে থাকলে তার আদর কমে যাবে এতে রাগান্বিত হয়ে এ লোহমহর্ষক হত্যা কাণ্ডটি ঘটিয়েছে।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুল কাদের মিয়া বলেন, নিহত শিশুর লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে।
ময়নাতদন্তের জন্য আগামীকাল শুক্রবার মরদেহ মর্গে পাঠানো হবে। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্তা চলছে।

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন