মাওলানা ফজলুল হক আমিনী উল্লেখিত সৈন্য সংখ্যা এখন কত? এক, দুই, তিন অথবা চার কোটি?

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ১, এপ্রিল, ২০২১, বৃহস্পতিবার
<strong>মাওলানা ফজলুল হক আমিনী উল্লেখিত সৈন্য সংখ্যা এখন কত? এক, দুই, তিন অথবা চার কোটি?</strong>

ইসলামী ঐক্যজোটের প্রয়াত নেতা ফজলুল হক আমিনী ২০০৪ সালে সাংবাদিক জুলহাস আলমকে বলেছিলেন যে, তাদের এক কোটি সৈন্য বড় হচ্ছে। তিনি জুলহাসকে বলেছিলেন অপেক্ষা করতে, ভবিষ্যৎ দেখার জন্য।

ফজলুর হক আমীনীর এক কোটি সৈন্যের বয়স এখন ২৫-৩০ এর কোটায়। সেই ভবিষ্যৎ দেখার সময় এখন এসে গেছে।

এর অন্তর্বর্তী সময়ে আরও এক কোটি শিশু বা কিশোর সৈনিক নিশ্চয় বড় হচ্ছেন। তৈরি হচ্ছেন।

প্রথম দফার তালিকায় রয়েছে প্রায় দেড় লাখ বীর মুক্তিযোদ্ধার নাম, ১৯১ বুদ্ধিজীবীর তালিকাও প্রকাশ করেছে সরকার ≣ চট্টগ্রামে নতুন শনাক্ত ২১২ ≣ সিলেটে সকল পর্যটন কেন্দ্র বন্ধ ঘোষণা
বাংলাদেশে কওমি মাদরাসার সংখ্যা ২২ হাজার। যেকোনো দিন এর মোট ছাত্র সংখ্যা ৩০ লাখ।

দেশে আলিয়া মাদরাসার সংখ্যা ৯ হাজার। এতে শিক্ষার্থী প্রায় ২১ লাখ ৪০ হাজার।

মাদরাসা শিক্ষিত এই বিপুল সংখ্যক নাগরিক অনেকখানি ক্যাডার সংগঠনের নেতাকর্মীর মতো নিবেদিত।

যথাযথ নেতৃত্বের কাছ থেকে ডাক আসলে তাদের একটা বড় অংশ নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়েও কর্মসূচিতে ঝাঁপিয়ে পড়তে সবসময় তৈরি। সারা দেশে প্রভাব সৃষ্টির সক্ষমতা তাদের রয়েছে। এই সক্ষমতা ক্রমাগত বাড়ছে।

বাংলাদেশে নামাজি ও ধর্ম পালনকারীর সংখ্যা দৃশ্যতই ব্যাপকভাবে বাড়ছে। বাড়ছে মুসল্লীদের সমবেত ও সংগঠিত হওয়ার কেন্দ্র, মসজিদের সংখ্যা।

দেশে নারী এবং শিক্ষিত নারীদের মধ্যেও নামাজ এবং হিজাবের আগ্রহ বাড়ছে, সেটাও দৃশ্যমান। তরুণদের মধ্যে ধর্মপ্রাণ এবং ধর্মপালনে আগ্রহ উল্লেখযোগ্যভাবে দৃশ্যমান হচ্ছে।
উপরোক্ত বাস্তবতার আলোকে বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ রাজনীতি, গণতন্ত্র এবং সামাজিক বিকাশ কেমন হতে পারে সেটা গভীর বিচার বিশ্লেষণ ও গবেষণার দাবি রাখে।

আমাদের আবেগতাড়িত হয়ে পক্ষে বিপক্ষে অবস্থান এবং যেকোনো সাধারণ বিরোধ কখন যে অসাধারণ, অচিন্তনীয় পরিস্থিতিতে রূপান্তরিত হতে পারে আমরা তার স্পষ্ট ধারণা রাখি না।

ভারতে উগ্র সাম্পদায়িক শক্তির রাজত্ব এবং মিয়ানমার থেকে উদ্ভূত রোহিঙ্গা সমস্যা বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে কী প্রভাব, তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে সেটা আমাদের স্পষ্ট জানা না থাকলেও, সেটা ধারণাতীত নয়।

বাংলাদেশে জাতীয়ভাবে এই বিষয়ে পর্যাপ্ত বৈজ্ঞানিক তথ্যানুসন্ধান, ব্যাপক গবেষণা এবং সঙ্গে সঙ্গে জাতীয়ভিত্তিক আলোচনা ও সংলাপের প্রয়োজন।

অনুলেখক: ফাহমিদা তিশা
রচনার তারিখ: ১ এপ্রিল ২০২১

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন
  • 74
    Shares