সাবেক খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলামের বিরুদ্ধে আরব আমিরাতে ৩ টি মামলা ও গেফতারি পরোয়ানা!

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ৭, এপ্রিল, ২০২১, বুধবার
সাবেক খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলামের বিরুদ্ধে আরব আমিরাতে ৩ টি মামলা ও গেফতারি পরোয়ানা!

আরব আমিরাতে বিভিন্ন অপরাধে বাংলাদেশে সাবেক মন্ত্রী ও নৈশ ভোটের এমপি কামরুল ইসলামের বিরুদ্ধে ৩ টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। প্রতিটি মামলায় পলাতক থাকায় কামরুল ইসলামের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, ২০১৫ সালের ১৬ মার্চ ওই সময়ের খাদ্য মন্ত্রী কামরুল ইসলাম আরব আমিরাত সফরে যান। ১৬ মার্চ রাতে শারজায় তিনটি ভিন্ন অপরাধে জন্য তার নামে তিনটি মামলা দায়ের করা হয়।

প্রথম মামলা:- শারজাহ সরকারের বিনা অনুমতিতে সেখানে রাজনৈতিক সভা করা এবং সে দেশের রাষ্ট্রীয় আইন ভঙ্গ করার অপরাধে কামরুল ইসলামের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রবাদী মামলা দায়ের করা হয়। মামলা নম্বর – ২৯১১০৮ তারিখ ১৭ -০৩- ২০১৫। এই মামলার তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে দাখিলের পর কামরুল ইসলামের নামে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়। কামরুল ইসলাম পলাতক থাকায় সেই গ্রেফতারি পরোয়ানা আরবের সবদেশে জারি করা হয়েছে।

দ্বিতীয় মামলা:- এটি একটি হত্যা চেষ্টার মামলা। রাজনৈতিক সভায় স্থানীয় এক নেতাকে হত্যার উদ্দেশ্যে মারধর করার অপরাধে কামরুল ইসলামকে প্রধান আসামি ও আওয়ামীলীগ নেতা জহিরুল ইসলাম সহ ৫০ জনের নামে মামলা দায়ের করা হয়। মামলা নম্বর- ২৯১৩০২ তারিখ ১৭-০৩-২০১৫। এই মামলায় অভিযুক্তদের মধ্যে ১৭ জন জেল হাজতে রয়েছেন। কামরুল সহ বাকি আসামিরা পলাতক থাকায় তাদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

তৃতীয় মামলা:- আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে তাঁদের কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে শারজাহ পুলিশ বাদী হয়ে এ মামলাটি দায়ের করে। মামলা নম্বর- ২৯২৩৪১ তারিখ ১৭-০৩-২০১৫। এই মামলায় কামরুলকে দুই নম্বর আসামি করা হয়েছে। শারজাহ আওয়ামীলীগের তৎকালিন সভাপতি জহিরুল ইসলামকে প্রধান আসামি করে আরো ২০ জনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে। এই মামলায় ১৭ জন কারাগারে রয়েছেন। বাকীরা পলাতক থাকায় কামরুল ইসলাম সহ তাদের বিরুদ্ধে আদালত গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে।

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন