প্রাচীন ধর্মীয় পাণ্ডুলিপির রহস্য উন্মোচন করেছেন যে বাংলাদেশি গবেষক

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ২৪, এপ্রিল, ২০২১, শনিবার
<strong>প্রাচীন ধর্মীয় পাণ্ডুলিপির রহস্য উন্মোচন করেছেন যে বাংলাদেশি গবেষক</strong>

কয়েক হাজার বছরের পুরোনো এক প্রাচীন ধর্মীয় পাণ্ডুলিপি, যা ‘ডেড সী স্ক্রল’ নামে বিখ্যাত, তা কিভাবে লেখা হয়েছিল, সেই রহস্য উন্মোচন করে সাড়া ফেলে দিয়েছেন একদল গবেষক, যাদের একজন বাংলাদেশি।

যে পার্চমেন্ট বা চামড়ার কাগজের ওপর এই পাণ্ডুলিপি লেখা হয়েছে, তা প্রায় সাত মিটার দীর্ঘ। প্রায় ৭০ বছর আগে জেরুজালেমের কাছে এক গুহায় এক আরব বেদুইন এই পার্চমেন্ট খুঁজে পান একটি বয়ামের ভেতর। এতদিন পর্যন্ত ধারণা করা হচ্ছিল এই পাণ্ডুলিপির পুরোটাই একজনের হাতে লেখা।

কিন্তু নেদারল্যান্ডসের গ্রুনিনগেন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স প্রযুক্তি ব্যবহার করে এই পাণ্ডুলিপির লেখা বিশ্লেষণ করে দেখতে পান, একজন নয়, আসলে দুজন মিলে এই পাণ্ডুলিপিটি লিখেছেন।

গবেষণাটি চালান এই বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন গবেষক ম্লাদেন পপোভিচ, মারুফ ঢালি এবং ল্যাম্বার্ট শমেকার।

মারুফ ঢালি একজন বাংলাদেশি গবেষক, যিনি এখন তার পিএইচডি গবেষণা করছেন গ্রুনিনগেন বিশ্ববিদ্যালয়ে। তার গবেষণার ক্ষেত্র হচ্ছে মূলত কম্পিউটার বেজড ইমেজ প্রসেসিং এবং আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স।

বিবিসি বাংলাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি তাদের গবেষণার বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন।

তিনি বলছেন, বিশ্বে প্রাচীন কোন পাণ্ডুলিপির বিশ্লেষণে এই প্রথম সফলভাবে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স ব্যবহার করা হয়েছে। প্রাচীন টেক্সট বিশ্লেষণে অত্যাধুনিক প্রযুক্তির এই ব্যবহার এখন এ ধরণের গবেষণার ক্ষেত্রে এক নতুন মানদণ্ড নির্ধারণ করে দিল বলে মনে করা হচ্ছে।

ডেড সী স্ক্রলে কি আছে?

১৯৪০ এবং ১৯৫০ এর দশকে বেশ কিছু প্রাচীন পাণ্ডুলিপি খুঁজে পাওয়া গিয়েছিল ইসরায়েল অধিকৃত পশ্চিম তীরে ডেড সীর আশেপাশে। এগুলো মূলত পার্চমেন্ট বা গোটানো চামড়ার ওপর লেখা পাণ্ডুলিপি।

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন