কংগ্রেসের বিজয়ে আন্তরিক অভিনন্দন ও তিস্তার পানি বন্টনের দাবি পূরণের আশাবাদী আমরা

বিজয় বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ৪, মে, ২০২১, মঙ্গলবার
<strong>কংগ্রেসের বিজয়ে আন্তরিক অভিনন্দন ও তিস্তার পানি বন্টনের দাবি পূরণের আশাবাদী আমরা</strong>

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেয়ে বিজয়ী হয়েছে মমতা ব্যানার্জির নেতৃত্বাধীন তৃণমূল কংগ্রেস। নির্বাচনে বিধানসভার ২৯৪ আসনের মধ্যে নির্বাচন হয়েছে ২৯২টিতে। সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজন ছিল ১৪৮ আসন। এতদসত্বে তৃণমূল কংগ্রেস জয় পেয়েছে ২১৩ আসনে। এগিয়ে আছে আরও চারটিতে। কাজেই তৃণমূল যে পশ্চিমবঙ্গে তৃতীয়বারের মতো সরকার গঠন করতে যাচ্ছে, এটা নিশ্চিত।

মমতা ব্যানার্জি নিজের আসন নন্দীগ্রামের আসনে পরাজিত হলেও দলের বিজয়ের সুবাদে মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার সম্ভাবনা তারই বেশি। পশ্চিমবঙ্গের মানুষেরা বাঙালি সংস্কৃতিকেই গুরুত্ব দিয়েছেন অনেকাংশে। মুলত এই নির্বাচন ছিল পশ্চিমবঙ্গে নরেন্দ্র মোদির জনপ্রিয়তার একটি পরীক্ষার হিসেব।

২০১৯ সালে এই রাজ্যে বিজেপি অনেকটা আটঘাট বেঁধেই নেমেছিল পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচনে জয়ী হওয়ার জন্য। বামফ্রন্টের ভরাডুবির কারণে বিজেপি পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিতে একটি শক্তিশালী বিরোধী দল হিসাবে আবির্ভূত হয়। একাধারে তিন দশকেরও বেশি সময়ের শাসক জোট বামফ্রন্ট এবার কংগ্রেসের সঙ্গে জোট গড়লেও নির্বাচনে তাদের শোচনীয় অবস্থা ছিল অবাক করার মতো।

পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচন নিয়ে স্বভাবতই এ দেশের জনগণের আগ্রহ ও কৌতূহল ছিল ব্যাপক। আমাদের বাংলাদেশের সবচেয়ে নিকটতম প্রতিবেশী রাজ্য এই পশ্চিমবঙ্গ। বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের মধ্যে ভাষা ও সংস্কৃতিসহ অনেক বিষয়েই মিল রয়েছে।

এই রাজ্যের নির্বাচনি ফলাফলের উপর বাংলাদেশের সঙ্গে অমীমাংসিত ইস্যুসমুহের নিষ্পত্তির আশাবাদী আমরা। অনেক আগে ভারত ও বাংলাদেশ সরকার বহু প্রতীক্ষিত তিস্তার পানিবণ্টন চুক্তি স্বাক্ষরের দ্বারপ্রান্তে পৌঁছলেও মমতা ব্যানার্জির আন্তরিক ভূমিকার অভাবে সফলতার মুখ দেখতে পায়নি।

সম্প্রতি তিনি নির্বাচনি বক্তব্যে পানিবণ্টনের যে আশ্বাস দিয়েছেন তা বাস্তবায়িত হবে বলে আমরা আশাবাদী। এটি যেনো নিছকই তার নির্বাচনি বক্তব্য না হয় সেই আশা ব্যক্ত করছি। সরকার গঠনের পর তিস্তার পানির ন্যায্য বণ্টনের বিষয়টিতে তিনি যেনো মনোনিবেশ করেন সেই আশাই আমরা বাংলাদেশীদের।

প্রতিবেশী হিসেবে পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গে আমাদের সম্পর্কের বিষয়টিও গুরুত্বপূর্ণ। সুতরাং পানিবণ্টন ইস্যুর দ্রুত নিষ্পত্তি হবে এটাই কাম্য। এজন্য তার ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ।

তৃণমূলের নিরঙ্কুশ জয়ে মমতা ব্যানার্জিকে জানাই আন্তরিক অভিনন্দন।

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন