আরব আমিরাতে এক টুকরো বাংলাদেশ

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ৮, মে, ২০২১, শনিবার
<strong>আরব আমিরাতে এক টুকরো বাংলাদেশ</strong>

কামরুল হাসান জনি : সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রাদেশিক শহর ফুজাইরাহ থেকে ৩৫ কিলোমিটার দূরে মাসাফি ‘ফ্রাইডে মার্কেট’। আরবিতে বলা হয় সুক আল জুমা। পাথুরে পাহাড়ঘেরা এই বাজার দূর-দূরান্তের পর্যটকদের অন্যতম পছন্দের জায়গা। দুবাই-শারজাহ-ধেহদ-ফুজাইরাহ মহাসড়কের দুই ধারে বিস্তৃত এই বাজারে রয়েছে চার শতাধিক দোকানপাট। এই বাজারে বিভিন্ন দেশের ব্যবসায়ীরা থাকলেও বড় একটি অংশই বাংলাদেশি। এখানে বাংলাদেশি ব্যবসায়ী-কর্মচারীদের প্রভাব এবং সুনাম- দুই-ই রয়েছে। অনেকের কাছে এই ফ্রাইডে মার্কেট যেন আরব আমিরাতের এক টুকরো বাংলাদেশ।

প্রতি শুক্রবার ও অন্যান্য ছুটির দিনে বিশেষ করে শীত মৌসুমে আরবের অধিবাসী ও বিদেশি পর্যটকদের ব্যাপক সমাগম ঘটে এখানে। তখন ফ্রাইডে মার্কেট পরিণত হয় আনন্দের হাটে। স্থানীয়ভাবে চাষাবাদ করা ফলফলাদি সহজলভ্য হওয়ায় অ্যারাবিয়ানদের বিশেষ আকর্ষণও এ বাজারের ওপর। দর্শনার্থীদের সুবিধার্থে বছর কয়েক আগে বাজারটি আধুনিকায়ন করা হয়েছে। নির্মাণ করা হয় মসজিদ। আলোর জন্যে বিদ্যুৎ সংযোগ এবং একটি পেট্রোল স্টেশনও স্থাপন করা হয়।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মৌসুমি ফলের চাহিদা মেটাতে এই বাজারের জুড়ি নেই। ফল বিক্রেতার বড় অংশই বাংলাদেশি। সবুজ জামা পরা বিক্রেতারা হরেক রকম ফল দিয়ে সাজিয়ে রেখেছেন দোকানগুলো। স্থানীয়রা ছাড়াও রাশিয়া, জার্মানি ও ইউরোপের দেশগুলো থেকে আসা পর্যটকের সংখ্যা এখানে চোখে পড়ার মতো। দর্শনার্থীদের একেকটি গাড়ি এসে থামে দোকানগুলোর সামনে। নিজ নিজ দোকানের পণ্য তালিকা জানাতে এগিয়ে আসেন দোকানিরা।

রসালো ফলে ভরপুর ফ্রাইডে মার্কেট
ব্যবসায়ীরা জানান, ফ্রাইডে মার্কেটের দোকান মালিকরা স্থানীয় অধিবাসী হলেও তাদের থেকে ইজারা নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করছেন বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ভারত, আফগানিস্তান, মিসরসহ কয়েকটি দেশের প্রবাসীরা। এদের মধ্যে জুমা মার্কেটে আধিপত্য বিস্তারে এগিয়ে আছেন বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা। বাংলাদেশি অধিকাংশই কাজ করেন ফলের দোকানে। একেকটি দোকানে চার থেকে ছয়জন পর্যন্ত কর্মী রয়েছে। বাংলাদেশিদের ফলের দোকান ছাড়াও আফগানি ও পাকিস্তানিদের কার্পেটের দোকান, ভারতীয় ও মিসরীয়দের কফি হাউস এবং চায়ের দোকান আছে। কার্পেট, মাটির তৈরি জিনিসপত্র, বিছানাপত্র, ধূপ বার্নাস, নার্সারি, স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত তাজা ফল ও সবজি, খেলনা সামগ্রীসহ আরবের প্রাচীন ও ঐতিহ্যবাহী পণ্যের বেশকিছু দোকানও রয়েছে এই বাজারে। এসব পণ্যের মধ্যে আফগানিস্তান ও পাকিস্তান থেকে কার্পেট আর ইরান থেকে আমদানি করা হয় মাটির তৈরি জিনিসপত্র। ছোট ছোট ফলের দোকানঘরে ক্রেতার ভিড় ও বেচা-বিক্রি সবচেয়ে বেশি। বন্ধুসুলভ আচরণ ও উদারতার জন্যে বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা এই বাজারে আসা বিদেশি পর্যটক ও অধিবাসীদের কাছে খুবই প্রশংসিত।

বাজারটির নামকরণ সম্পর্কে কিছু মৌখিক প্রচার রয়েছে। কয়েক দশক আগে প্রতি শুক্রবার স্থানীয় কয়েকজন কৃষক নিজেদের উৎপাদিত পণ্য ট্রাকে করে এখানে নিয়ে আসতেন। পার্শ্ববর্তী মসজিদে জুমার নামাজ আদায়ের পর ট্রাক থেকে জিনিসপত্র খালাস করে পথের পাশে স্টলের মতো করে নিজেদের উৎপাদিত পণ্য বিক্রির উদ্দেশ্যে সাজিয়ে রাখতেন। সড়কপথে যাতায়াতকালে যাত্রাবিরতিতে এসব কৃষিপণ্য ক্রয় করতেন ভ্রমণকারীরা। এই বেচাকেনা অন্য যাত্রীদেরও চোখে পড়ে। কালক্রমে এক-দুই করে জানাজানি হতে থাকে এই বেচা-বিক্রির খবর। দিনকে দিন ক্রেতা-বিক্রেতার সংখ্যা বাড়ে। বাড়তে থাকে বাজারের পরিধিও। পরবর্তী সময়ে শুক্রবার ছাড়াও এখানে মানুষের সমাগম থাকত লক্ষণীয়। একপর্যায়ে ভ্রাম্যমাণ বিক্রেতারা স্থানীয় অধিবাসীদের সহায়তায় জায়গা ইজারা নিয়ে তৈরি করেন ছোট ছোট দোকান। দোকান ভাড়া কম হওয়ায় দিনে দিনে ব্যবসায়ীর সংখ্যা বৃদ্ধি পায়। কম মূল্যে ভালো পণ্য পাওয়ায় ক্রেতাদেরও চাহিদা বাড়ে। একসময় এটি রূপান্তরিত হয় পূর্ণাঙ্গ বাজারে। সময়ের ব্যবধানে এই বাজারে এখন সপ্তাহে সাত দিনই বেচাকেনা হয়। শুক্রবার দিয়ে শুরু হওয়ায় বাজারের নামকরণ হয় সুক আল জুমা। সড়কপথে স্থান নির্দেশনার জন্যে ইংরেজিতে লেখা হয় ফ্রাইডে মার্কেট। বর্তমানে যাত্রাপথের যাত্রী ও ভ্রমণে আসা পর্যটকদের মন কাড়ে উঁচু পাহাড়ের বুকে গড়ে ওঠা পর্যটকের এই হাট।

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন
  • 27
    Shares