আল-আকসা মুক্তির পথে বাধা কোথায়?

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ১৬, মে, ২০২১, রবিবার
<strong>আল-আকসা মুক্তির পথে বাধা কোথায়?</strong>

সৈয়দ শামছুল হুদাঃ মুসলমানদের হারানো গৌরব ফিরে পেতে জাতিসংঘই সবচেয়ে বড় বাধা। ইসরাইলের এই যে এতবড় আস্ফালন তার সবকিছুর পেছনে রয়েছে এই সংঘ। যতদিন এই সংঘে মুসলমানদের অধিকারের প্রশ্নে ভারসাম্য না আসবে, ততদিন মুসলমানরা বিশ্বনেতৃত্বের আসনে কোনভাবেই ফিরে আসতে পারবে না। ইসরাইলকেও থামাতে পারবে না। ওরাই জায়নিষ্টদের বর্বরতার পৃষ্টপোষক। পৌত্তলিক শক্তিও আজ তাদের ক্রীড়নক।

আর এজন্যই মুসলিম বিশ্বের প্রাণপ্রিয় নেতা, রজব তাইয়েব এরদোয়ান বারবার বলে চলেছেন, জাতিসংঘের ৫স্থায়ী সদস্যের চেয়ে বিশ্বটা আরো অনেক বড়। একপাক্ষিক এই সংঘ মানবতার মু্ুক্তি দিতে পারেনি। আর সেই জায়গাটাই অবস্থান তৈরি করতে হলে সকল মুসলিম দেশকে একক নেতৃত্বের অধীনে আসতে হবে। এবং বর্তমান বিশ্বব্যবস্থাকে চ্যালেঞ্জ করে জাগতিক সবদিক দিয়ে মুসলমানদেরকে স্বাবলম্বি হতে হবে।

স্বনির্ভর সামরিকনীতি, অর্থনীতি, প্রযুক্তি, বিজ্ঞান ও ঈমানদার দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলার মাধ্যমেই সম্ভব আজকের অমানবিক বিশ্বশক্তিকে চ্যালেঞ্জ করা। এর কোন বিকল্প নাই। আর এ জন্য প্রতিটি মুসলিম দেশের শাসকগোষ্ঠীর ওপর স্থানীয়ভাবে প্রচন্ড চাপ সৃষ্টি করতে হবে, যাতে তারা মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে ঐক্য তৈরিতে বাধ্য হয়।

আফসোস হয়, আমাদের দেশের সাংবিধানিক সঙ্কটের জন্যও। আমাদের সংবিধানে মুসলিম বিশ্বের সাথে অগ্রাধিকার মূলক সম্পর্কের একটি গুরুত্বপূর্ণ ধারা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান সংযুক্ত করেছিলেন। আজকের সংবিধান থেকে এ ধারাটি বিলুপ্ত করে দেওয়া হয়েছে। তুলে দেওয়া হয়েছে, আল্লাহর প্রতি অবিচল আস্থা ও বিশ্বাসই হবে সকল কাজের মূলভিত্তি কথাটিও। সুরঞ্জিত সেন গুপ্তরা আমাদেরকে অন্ধকার জগতে ফেলে দিয়ে গিয়েছে।

সারাবিশ্বের সকল মুসলমানদের অন্তরে আল আকসার ভালোবাসা জাগাতে চলমান পরিস্থিতি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা হওয়া দরকার। পাশ্চাত্যঘেষা শাসকগোষ্ঠীগুলোর ওপর কৌশলগত নিরন্তর চাপ সৃষ্টির মাধ্যমেই সম্ভব আলআকসার পুনুরুদ্ধার। মহান আল্লাহর কাছে প্রার্থনা! তিনি আমাদেরকে আবারও একজন মুসলিম লিডারের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার তৌফিক দান করুন।

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন