এত ত্যাগ বৃথা যেতে পারে না, জয় নিশ্চিত : ফখরুল

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ৮, জুন, ২০২১, মঙ্গলবার
<strong>এত ত্যাগ বৃথা যেতে পারে না, জয় নিশ্চিত : ফখরুল</strong>

আলোচনা সভায় মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। – ছবি : সংগৃহীত

বিজয় বাংলা অনলাইন : দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আপনারা আশাহত না হয়ে দাবি আদায়ের জন্য আন্দোলন সংগ্রাম চালিয়ে যান ইনশাআল্লাহ জয় আমাদের আসবে। তিনি বলেন, এত ত্যাগ বৃথা যেতে পারে না।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বীর উত্তমের ৪০তম শাহাদতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ যেদিন থেকে ক্ষমতায় এসেছে তারা সেদিন থেকে জোর করে ক্ষমতা দখল করে আছে। আমরা শুরু থেকে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, আমাদের বয়স এখন অনেকের ৭০-এর উপরে অনেক সময় ইচ্ছা থাকা সত্ত্বেও আমাদের আন্দোলন করা সম্ভব হয় না। আজীবন দেশের ইতিহাসে নব্বইয়ের গণঅভ্যুত্থান আন্দোলনের যুবকরা বিশেষ ভূমিকা রাখে। আর সমস্ত অন্যায় ও আওয়ামী বিরোধী আন্দোলন যুবকদেরকে শুরু করতে হবে। আন্দোলন শুরু হয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে এরপর সে আন্দোলন সারাদেশে ছড়িয়ে যায়।

এসময় তিনি আরো বলেন, জেগে উঠতে হবে, জাগাতে হবে। যুবকরা কোথায়? অন্যায়ের বিরুদ্ধে বিএনপি সবসময় সোচ্চার আছে। এখনো জেল-জুলুম ও নির্যাতিত হচ্ছে। আমার নামেও অনেক মামলা রয়েছে হাজিরা দিয়ে যাচ্ছি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, আওয়ামী লীগ যতবার ক্ষমতায় এসেছে ততবারই গণতন্ত্রকে হত্যা করেছে। আর বিএনপি বার বার গণতন্ত্র ফিরিয়ে দিয়েছে। এজন্য দেশের মানুষ সব সময় বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপিকে ভালবাসে এবং তারা বিএনপিকে ক্ষমতায় আনতে চায়।

তিনি বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের পথ না করলে পরিণতি ভালো হবে না।

তিনি বলেন, বর্তমান আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের বিদেশে টাকা পাচার ঠেকানো যাচ্ছে না। তারা বিভিন্নভাবে দেশকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে।

কর্মীদের উদ্দেশে মির্জা ফখরুল বলেন, পদ-পদবির জন্য নেতাকর্মীদের রাজনীতি না করার আহ্বান করছি।

মির্জা ফখরুল বলেন, আওয়ামী লীগ জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে সম্পূর্ণ মিথ্যা প্রচার করে আসছে। স্বাধীনতার ঘোষক জিয়াউর রহমানকে আওয়ামী লীগ খলনায়ক বানানোর চেষ্টা করছে। আমি বলতে চাই, মেজর জিয়াউর রহমান এ দেশের রাষ্ট্রনায়ক জিয়াউর রহমান, যদি সেই দিন স্বাধীনতার হাল না ধরতেন তাহলে এ দেশ কখনো স্বাধীন হতো না। কাজেই জিয়াউর রহমানের সমালোচনা থেকে আওয়ামী লীগের দূরে থাকা উচিত।

আওয়ামী লীগ ’৭২ সালের সংবিধানকে কেটে-ছিঁড়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা ধ্বংস করছে উল্লেখ করে তিনি তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা পুনরায় বহাল করার দাবি জানান।

তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, বর্তমান তথ্যমন্ত্রী সব মিথ্যে বলেন। তিনি সম্ভবত হিটলারের তথ্যমন্ত্রী ছিলেন। আওয়ামী লীগের এ সমস্ত নেতাকর্মীরা বারবার মিথ্যে বলতে বলতে একবার সত্য বলে ফেলে। তাদের মুখ দিয়ে সত্যটা বেরিয়ে আসে। তিনি বলেন, শেখ মুজিব রহমানকে আওয়ামী লীগই ছোট করছে।

আলোচনা সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম ও সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ প্রমুখ।

সুত্র : নয়া দিগন্ত

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন