বাংলাদেশের কম্যুনিষ্টদের এইটা একটা অদ্ভুত কিসিমের খাসলত।

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ১৫, জুন, ২০২১, মঙ্গলবার
<strong>বাংলাদেশের কম্যুনিষ্টদের এইটা একটা অদ্ভুত কিসিমের খাসলত।</strong>

|মূনিষি বিষ্যজীত|

অনলাইন ডেস্কঃ আন্দোলনের মাঠে কম্যুনিষ্টরা নিজেরা কতদুর কামিয়াবি হইতে পারলো, সেইটার চাইতে তাগোর বেশি দুশ্চিন্তা, অন্যেরা সমাজে বেশি বেশি গুরুত্ব পায়া গেল কিনা। আর এই সংকীর্ন মনোভাবের কারণে বাংলাদেশের রাজনীতিতে কম্যুনিষ্টরা সারাটা জীবন এক আকাইম্যা ফ্যাক্টর হিসাবেই রয়া গেছে।

আনু মোহাম্মদের সাম্প্রতিক এক মন্তব্যের কথাই ধরেন… সেইখানে তার প্রধান দুশ্চিন্তা দেখা যাইতেছে, আন্দোলনের সংস্থা হিসাবে হেফাজত ইসলাম প্রতিষ্ঠা পায়া যাইতেছে কি’না, সেইটা নিয়া পেরেশানি। অথচ আনু ভাই সহ তাবত কম্যুনিষ্টদের এই সহজ কথাটা বুঝা উচিত, আপ্নের যদি হিম্মতে না কুলায়, তাইলে আন্দোলনে অন্যদের আধিপত্য তো বাড়তে থাকবেই। হেফাজত নিয়া যে বিদ্বেষ আর প্রতিহিংসা পুইষা রাখছেন, তা দিয়া আন্দোলনে অন্যের লাভালাভ প্রশ্নে আপ্নে পেরেশানি হইতেই পারেন, কিন্তু তাতে কি আপ্নের নিজের কোন লাভ ঘটবে…?? তা ঘটবে না।

নিজেদের দিকে না তাকায়া, কারো প্রতি বাড়তি প্রতিহিংসা দিয়া আপ্নে রাজনীতিতে কিইবা আদায় করতে পারবেন। আপ্নের এই চিরকালিন ইসলাম বিদ্বেষ দিয়া আপ্নে তো কিছুই হাসিল করতে পারবেন না। মনে রাইখেন, বিদ্বেষ কখনো কোন রাজনীতি নয়…!!

তবে এই ঘটনায় এক গুরুত্বপুর্ণ টার্ণ আছে, যেইটা আমার নজরে পড়ছে।

সেই বিচারে শেষ কথা হিসাবে, আনু ভাইরে তবু একটা সাবাসি জানাইতে চাই… তিনি সাহস কইরা পুলিশের গুলিতে কয়েকজন মাদ্রাসাছাত্রের নিহত হওয়ার মর্মান্তিক ঘটনায় বিচার দাবি করা এক বিবৃতিতে, উনি স্বাক্ষর করছেন। এই সিদ্ধান্তের কারনে উনারে স্বাগত জানাইতে চাই। আমাদের রাজনৈতিক চিন্তা ভেদে, মত পার্থক্য -ভাগাভাগি তো অবশ্যই আছে। কিন্তু তা সত্বেও ভেদ-পরিচয়ের উর্ধ্বে উইঠা, যে কোন নাগরিকের সুরক্ষার প্রশ্নে ও পক্ষে আমরা যেন একজোটে খাড়াইতে পারি…! আনু ভাইয়ের এই প্রচেষ্টা আমার ভালো লাগছে।

আমাদের পারস্পরিক বুঝাবুঝি বাড়ুক এই কামনা করি। আমাদের এই খারাপ সময়ে শত্রু-মিত্রের ভেদবিচারে, আন্দোলনের মাঠে আমাদের সবার ভিতর ঠান্ডা মাথার চিন্তার সক্ষমতা আসুক। এই দুআ করি।

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন
  • 21
    Shares