হতাশা নিয়ামতে ইসলাম গ্রহণ!

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ২৩, জুন, ২০২১, বুধবার
<strong>হতাশা নিয়ামতে ইসলাম গ্রহণ!</strong>

তাহমীদ ইসলামঃ বিশাল একটা বইয়ের দোকানের মধ্যে ঘোরাফেরা করছে যুবক ডেভিস। তার ইচ্ছা একটা বাইবেল কিনে ভালোভাবে খ্রিস্টান ধর্মটা অনুসরণ শুরু করবে। সে যখন দোকানে বইয়ের ধর্ম শাখার দিকে যাচ্ছিলো তখন ‘প্রাচ্য দর্শন’ শাখায় ইসলাম সংক্রান্ত সকল বই দেখতে পেলো। কিছুটা অবাক হয়ে কুরআনের একটা অনুবাদ নিয়ে পড়া শুরু করলো সে। কুরআন খুলেই প্রথম তার সামনে আসলো ‘সুরা মরিয়ম’।

“আমি দোকানে দাড়িয়েই পুরো সুরাটা পড়ে শেষ করি। সুরাটা পড়তে পড়তেই আমার চোখে পানি জমে যায়। খ্রিস্টান ধর্মের অনুসারি হিসেবে আমার মনে যেসব প্রশ্ন ছিলো সেই সব প্রশ্নই এই একটা সুরাই উত্তর দিয়ে দিয়েছিলো। আমি চিন্তা করলাম এই সুরাটাকেই আমার ধর্ম বানাবো”।

মুস্তাফা ডেভিসের জন্ম খ্রিস্টান পরিবারে হলেও তিনি ছিলেন একজন নাস্তিক। নাস্তিকতার অনেকটা অপরিহার্য পরিণতি হিসেবে তিনি একটা সময় অনেক হতাশ হয়ে গিয়েছিলেন। মাদক সহ অনেক ধরণের কিশোর অপরাধের সাথে তিনি জড়িয়ে পড়েছিলেন। হতাশা থেকে উত্তরণের জন্যই মূলত তিনি ধর্মের পথে ফিরতে উদ্যত হন।

সুরা মরিয়ম পড়ে অশ্রুসজল হয়ে তিনি বইয়ের দোকান থেকে একটা কুরআন কিনে নিয়ে যান এবং বাসায় গিয়ে সেই সুরাটা আরো ২ বার পড়েন। তিনি আর কিছু পড়ছিলেন না। কারণ তার মনে হচ্ছিলো তিনি যদি আর কিছু পড়েন তাহলে তার সামনে এমন কিছু আসবে যেটা তার অপছন্দনীয়। এভাবে সুরা মরিয়মকেই তিনি নিজের ধর্ম বানিয়ে ফেলতে চাচ্ছিলেন।

একবার এক মুসলিম দোকানদার তাকে নিজের দোকানের দায়িত্ব দিয়ে চলে যায়। সেই মুসলিম ছেলেটাকে সে চিনতো না। দোকানের দায়িত্ব পাওয়ার পর তার মাথায় চিন্তা আসে-
“আমি ভাবছিলাম আমি চাইলেই তো দোকানের ক্যাশিয়ার থেকে সব টাকা নিয়ে যেতে পারি। কিন্তু তখনই আমার মাথায় আসলো যে, সেই মুসলিম ছেলেটিও এই বিষয়টা জানে। কিন্তু সে তোয়াক্কা করে না। নিজের ভেতর যে জিনিসটার জন্য ছেলেটা তার টাকার কোনো তোয়াক্কা করে না, আমার সেটা চাই!”

দোকানদার যখন নামাজ শেষে ফিরে আসে তখন মুস্তফা দেখলেন তার পুরো চেহারা আলোকিত হয়ে আছে। পরে তিনি জানতে পারেন এটা ছিলো ঐশ্বরিক নূর।

মুস্তফা ডেভিস ইসলাম গ্রহণ করেন ১৭ই রমজান, বদরের দিন এবং একই সাথে সেদিন ছিলো জুমু’আ। পরবর্তীতে মুস্তফার মা, সৎবাবা ও তার ভাইও ইসলামকে কবুল করে।
বর্তমানে তিনি ডকুমেন্টারি, ফিল্ম ইত্যাদির মাধ্যমে ইসলাম প্রচারের কাজ করে যাচ্ছেন।

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন