কান পাকা ও পুঁজ পড়া-রোগীর সচেতনতা

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ৩, জুলাই, ২০২১, শনিবার
কান পাকা ও পুঁজ পড়া-রোগীর সচেতনতা

কান পাকা, কানের পুঁজ পড়া রোগ: প্রতিকার ও সমাধান। কান দিয়ে পুঁজ পড়া রোগী এবং তার পাশের মানুষের জন্য বিরক্তিকর একটা ব্যাপার । শুধু তাই নয় দীর্ঘদিন এই সমস্যা চলতে থাকলে ধীরে ধীরে কানের শ্রবণশক্তি হ্রাস পেতে থাকে। নানা ধরনের জটিলতা সৃষ্টি হয় ।চিকিৎসা এবং তার সফলতাও কঠিন হয়ে যায় ।

আসুন জেনে নেই কেন এই রোগটি হয় :

আমাদের মধ্যে একটা ধারণা কাজ করে গোসল করার সময় কানে পানি ঢুকেছে তার পর থেকে কানে পানি পড়ছে। ধারণাটা ঠিক নয়।আমাদের কানের তিনটি অংশ ।
অন্ত: মধ্য আর বহি:কর্ণ। বহি:কর্ণ (শরীরের বাইরে যেটা দেখতে পাই) থেকে মধ্য কর্ণকে আলাদা করে একটি পর্দা। এই পর্দা আমাদের শুনতে সাহায্য করে,বাইরের ময়লা থেকে রক্ষা করে,অন্ত:কর্ণ কে নিরাপদ রাখে।যদি কোনো কারনে এই পর্দাটি ফেটে যায় তখনই শুরু হয় যত সমস্যা ।

কারণ সমূহ: ঘন ঘন ঠান্ডা সর্দি লেগে কানে ব্যাথা হলে কিংবা কান বন্ধ হয়ে গেলে কানের পর্দা দূর্বল হয়ে যায় বাইরে থেকে কানে খোঁচা লেগে পর্দা ফেটে গেলে।
উচ্চ মাত্রার শব্দ কানে গেলে। কানে সরাসরি সজোরে আঘাত পেলে।

পুঁজ পড়ার কারণ:পর্দা ছিদ্র থাকলে যদি কোনো ভাবে কানে ইনফেকশন হয়:বাইরে থেকে কানে পানি গেলে
ঠান্ডা লাগলে। রক্তে কোনো জীবানুর সংক্রমণ হলে।

উপসর্গঃ কানে ব্যাথা হবে। .কান দিয়ে পুঁজ, রক্ত, পানি বের হবে। বাচ্চা প্রচন্ড কান্না করবে এবং ব্যাথায় ঘুম থেকে উঠে কান্না করবে। বাচ্চা বার বার কানে হাত দিবে। জ্বর আসবে। যখন বাচ্চা কান্না থেমে যাবে, তখন দেখা যাবে বাচ্চা কান থেকে পুঁজ পড়া শুরু হবে।

Ear infection কে দুই ভাগে ভাগ করা যায়ঃ ১/ Acute ear infection. ২/chronic ear
infection.

১/কানে ব্যাথা থাকলে, কান থেকে যতই পুঁজ ,পানি পড়ুক না কেন সে ক্ষেএে Acute ear infection ধরা হবে।
কানের ভিতর থেকে পানি পড়া ৩০ দিন এর কম হলে acute ear infection ধরা হবে।

২/কানের ভিতর পানি পড়া ৩০ দিন এর বেশি হলে সেক্ষেত্রে chronic ear infection ধরা হইবে।

ট্রিটমেন্টঃR
Syp. Moxacil (125mg)
১+১+১— ৭দিন
Syp.Napa (120mg) জ্বর এবং ব্যাথার জন্য
১+১+১+১—৭দিন
Syp.Alatrol( 5mg/5ml) কান চুলকানোর জন্য ১ফোটা করে কানে দিতে হবে, ২ কানে সমস্যা থাকলে ২ কানেই দিতে হবে, যদি এক কান ভাল থাকে তাহলে ভাল কানে দেওয়া যাবে না।

পরামর্শঃশুকনো পরিষ্কার কাপড় দিয়ে পেচিয়ে কানে ডুকাতে হবে এবং ভিজা থাকলে আবার ডুকাতে হবে। কানের ভিতরটা পরিষ্কার করতে হবে। দিনে ৩ বেলা করে।
Complication: কানে পিছনের অংশ লাল হয়ে যাবে। কানের পিছনের অংশ ফুলে যাবে এক্ষেএে hospitalization or কানের ডাক্তার এর কাছে পাঠাতে হবে।

বিঃদ্রঃকানের পর্দায় যদি ছিদ্র থাকে তবে কানের ড্রপ ব্যবহার করা যাবে না।

R উপদেশ: কিছু উপদেশ রোগীকে অবশ্যই মেনে চলতে হবে।
কান খোঁচানো যাবে না। কানে যেন কোনো ভাবেই পানি না যায় ।ডুব দিয়ে গোসল করা যাবে না।কানে তুলা দিয়ে গোসল করতে হবে। অথবা ইয়ার প্লাগ বা ছিপি ।
ঠান্ডা লাগানো যাবে না। ডাক্তারের পরামর্শ ছাড়া কেউ মেডিসিন খাবেন না। প্রয়োজনে আমার কাছে হতেও পরামর্শ দিতে পারেন, পারেন মেডিসিন লেখে নিতে।

ডাঃ রোকসানা ইয়াসমিন রোকেয়া
এম.বি.বি.এস এফ সি.পি এস (মেডিসিন)

বিজয়াবাংলা/আশরাফ/ ০৩ জুলাই ২০২১’

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন