জাস্টিস মুফতি তাকি উসমানীর উপর হামলা ও তার নিজের অভিব্যক্তি

বিজয় বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ১০, জুলাই, ২০২১, শনিবার
জাস্টিস মুফতি তাকি উসমানীর উপর হামলা ও তার নিজের অভিব্যক্তি

পাকিস্তানের প্রখ্যাত আলেম আল্লামা তাকী উসমানীর উপর হামলার চেষ্টা করা হয়েছে বৃহস্পতিবার বাদ ফজর । তবে তিনি নিরাপদ রয়েছেন। হামলার পর তিনি নিজেই ঘটনার বর্ণনা দিয়েছেন।

অডিও বার্তায় ঘটনার বর্ণনা দিতে গিয়ে আল্লামা তাকী উসমানী বলেন, ‘ফজরের পরে একজন এসেছিলেন আমার সাথে একান্তে সাক্ষাত করতে। কথা বলার জন্য আমি তার নিকটবর্তী হলে সে পকেট থেকে চাকু বের করে , এসময় আমার আশপাশের লোকেরা তাকে আটক করেন। আল্লাহর শুকরিয়া আমার কিছু হয়নি, আমি নিরাপদ আছি’।

‘আক্রমণকারীর ব্যাপারে তদন্ত চলছে, সে কে ছিল, কেন এসেছিল, তদন্ত শেষেই স্পষ্ট জানা যাবে তার আক্রমণের উদ্দেশ্য কী ছিল?

ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী একজন জানিয়েছেন, আল্লামা তাকি উসমানির ওপর হামলা চেষ্টার সময় ফজরের পর আমিও ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলাম।

ফজর পড়ে হুজুর বসেছিলেন,দু’একজন ছাত্র হুজুরের খেদমতে নিয়োজিত ছিলেন, আমরা কয়েকজন পাশে বসে ছিলাম, এমন সময় একজন হুজুরের সাথে দেখা করতে আসেন। তার হাতে গিফট পেপারে কিছু একটা মোড়ানো ছিল। হুজুরের সাথে সে কি বিষয়ে কথা বলছিল তা আমরা বুঝতে পারছিলাম না। পরবর্তীতে গার্ড আমাদেরকে জানালেন, সে হুজুরের সাথে আলাদা কথা বলার অনুমতি চেয়েছিল, কিন্তু হুজুর বলেন আমি আপনাকে চিনি না আপনার সাথে কিভাবে কথা বলতে পারি। একথা বলে হুজুর কিছুটা পিছিয়ে এলে ঘাতক চাকু বের করে, গার্ড তা দেখতে পেয়ে সাথেসাথে তাকে ধরে ফেলে ও পুলিশের হাতে তুলে দেয়। এ ঘটনার পর হুজুর তাৎক্ষণিক সেখান থেকে বাসায় চলে যান।

প্রত্যক্ষদর্শী বলেন, ঘাতক হামলার চেষ্টা করছিল, সে ছুরি বের করেছিল,  তবে সে হামলা করতে পারেনি।

উল্লেখ্য, দুই বছর পূর্বে মার্চ মাসে দারুল উলূম করাচিতে মুফতি তকি উসমানীর গাড়িতে হামলা চালানো হয়। গাড়িতে তিনি, তার স্ত্রী ও দুই নাতি-নাতনিও ছিলেন। হামলায় তার দুইজন গার্ড শহীদ হয় এবং বায়তুল মোকাররম মসজিদের খতিব মাওলানা আমির শেহাব ও মুফতি তাকী উসমানী আহত হন।

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন
  • 20
    Shares