মাস্ক, কোয়ারেন্টিন এবং লালা পরীক্ষার গ্যাঁড়াকলে এবারের অলিম্পিক

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ২৪, জুলাই, ২০২১, শনিবার
মাস্ক, কোয়ারেন্টিন এবং লালা পরীক্ষার গ্যাঁড়াকলে এবারের অলিম্পিক

স্পোর্টস ডেস্কঃ শুরু হয়েছে টোকিও অলিম্পিক গেমস। কোভিড প্যানডেমিকের কারণে হবে কি হবেনা এই নিয়ে বছরভর অনিশ্চয়তার পর শুক্রবার শেষতক তা শুরু হয়েছে।

কিন্তু অতীতের যে কোনো অলিম্পিক বা যে কোনো ক্রীড়া প্রতিযোগিতার চেয়ে এবারে জাপানের এই অলিম্পিক নানা দিক থেকে অনেকটাই আলাদা।

প্যানডেমিকের কারণে অলিম্পিকস এক বছর পিছিয়েছে। ফলে ২০৭টি দেশের ১১,৩০০ অ্যাথলেট প্রশিক্ষণ এবং অনুশীলনের জন্য বাড়তি এক বছর সময় পেয়েছেন।

দু’হাজার বিশ সালের মার্চে যখন টোকিও অলিম্পিকস স্থগিত করার ঘোষণা আসে, আয়োজকরা বলেছিলেন, ‘অলিম্পিক মশাল হবে অন্ধকার সুড়ঙ্গের শেষে আশার আলো।‘ রূপক অর্থে যে সুড়ঙ্গের কথা তারা তখন বলেছিলেন তার শেষে আলোর দেখা এখনও মেলেনি।

উদ্বোধনের দু’দিন আগে আন্তর্জাতিক অলিম্পিক কমিটির প্রেসিডেন্ট টমাস বাখ বলেন, “স্টেডিয়ামে ঢোকার সময়টা আনন্দের এবং হাফ ছেড়ে বাঁচার মত একটা অনুভূতি হবে। বিশেষ করে অ্যাথলেটদের জন্য এটা হবে সত্যিই একটি আনন্দের মুহূর্ত, কারণ আমি জানি এই সময়টার জন্য তারা কতটা আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছিলেন।“

তবে মুখে মাস্ক থাকায় উদ্বোধনীতে মার্চ পাস্টের সময় অ্যাথলেটদের মুখে সেই আনন্দ-উচ্ছ্বাসের প্রতিফলন ততটা বোঝা যায়নি।

মাস্ক, কোয়ারেন্টিন, লালা পরীক্ষা আর ফাঁকা গ্যালারি
কোনো সন্দেহ নেই এই অলিম্পিকস অতীতের যে কোনো গেমসের থেকে ভিন্ন। রাজধানী টোকিওতে এখন কোভিড জরুরি অবস্থা চলছে। গত এক সপ্তাহ ধরে গড়ে প্রতিদিন এক হাজার নতুন কোভিড রোগী শনাক্ত হচ্ছে টোকিওতে।

এর ভেতর সারা পৃথিবী থেকে হাজার হাজার মানুষ তাদের শহরে এসে ভিড় করবে – এটা জাপানের রাজধানীর বহু বাসিন্দা মেনে নিতে পারছেন না। তারা অলিম্পিক বাতিল বা অন্তত করার দাবি করছেন বেশ কিছুদিন ধরে।

তবে আয়োজকরা ভরসা দিচ্ছেন বিপদ এড়াতে তারা সর্বোচ্চ সাবধানতা নিচ্ছেন।

ভেন্যুতে শুধু প্রতিযোগী এবং প্রয়োজনীয় কর্মকর্তারা থাকবেন, কিন্তু দেশি-বিদেশি কোনো দর্শকই থাকবেনা।

অ্যাথলেট এবং তাদের সাথে আসা প্রশিক্ষক বা কর্মকর্তাদের ওপরও নানা ধরণের বিধিনিষেধ রয়েছে। খাওয়ার সময়, অনুশীলনের সময়, ঘুমানোর সময় বা মূল প্রতিযোগিতার সময় ছাড়া তাদের সবাইকে সবসময় মাস্ক পরে থাকতে হবে। একজনের কাছ থেকে অন্যজনকে যতটা সম্ভব দূরত্ব রাখতে হচ্ছে।

এবং সেই সাথে প্রত্যেককে প্রতিদিন কোভিড পরীক্ষা করতে হচ্ছে।

কিন্তু এত কিছুর পরও অলিম্পিককে নিশ্ছিদ্র করা সম্ভব হয়নি। খেলা শুরুর আগেই গেমসে ভাইরাস ঢুকে পড়েছে। আজও (শুক্রবার) আরো নতুন ১৬ জন কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন।

এ নিয়ে এখন পর্যন্ত অলিম্পিক সংশ্লিষ্ট ১০৬ জন কোভিডে আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে টোকিওতে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন ১১ জন অ্যাথলেট।

ব্রিটেনের ছয়জন অ্যাথলেটকে কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে। কারণ যে বিমানে তারা টোকিওতে যান তার একজন যাত্রী কোভিডে আক্রান্ত হওয়ার পর তাদেরকে ঘরের বাইরে বেরুতে নিষেধ করা হয়েছে। ব্রিটেনের তিনজন নামকরা অ্যাথলেট – ড্যান ইভান্স, জোয়ানা কন্টা এবং বিশ্বের এক নম্বর শুটার অ্যাম্বার হিল – একই কারণে টোকিওতে যাচ্ছেনই না।

কোভিড পরীক্ষায় পজিটিভ হওয়ায় মার্কিন টেনিস খেলোয়াড় কোকো গফ গেমস থেকে নিজেকের প্রত্যাহার করে নিয়েছেন।

তবে অলিম্পিকের পরিধিতে কোনো আপোষ করা হচ্ছেনা। বরঞ্চ নতুন কিছু খেলা এবং ইভেন্ট এবার যোগ হয়েছে।৩৩টি ভিন্ন খেলায় রেকর্ড ৩৩৯টি মেডেল ইভেন্ট হবে।

পাঁচটি নতুন খেলা এবং ৩৪টি নতুন ইভেন্ট এই অলিম্পিকে যোগ হয়েছে। নতুন এই পাঁচটি খেলা হচ্ছে – কারাতে, স্কেট-বোর্ডিং, ক্লাইম্বিং, বেসবল-সফট-বল এবং সার্ফিং। বেসবল এবং সফট-বল সেই অর্থে একদম নতুন নয়, তবে ২০০৮ সালে বেইজিং গেমসের পর এটি আর হয়নি।

বক্সিং, সাইক্লিং, রোয়িং বা নৌকা বাইচ এবং সাঁতারে বেশ কিছু নতুন ইভেন্ট যোগ হয়েছে। সেইসাথে, কিছু ইভেন্টে এবার নারী-পুরুষ একসাথে প্রতিযোগিতা করবে – যেমন ৪০০ মিটার মিশ্র রিলে সাঁতার এবং মিশ্র ট্রায়াথলন।

আইওসি বলছে, নতুন প্রজন্মের দর্শক টানতে নতুন কিছু ইভেন্ট এবং নারী-পুরুষের মিশ্র ইভেন্ট যোগ করা হয়েছে । সংস্থার প্রধান বলেন তাদের এই সিদ্ধান্তে “খেলাধুলোয় নগরায়নের প্রভাব প্রতিফলিত হয়েছে।“

মি. বাখ বলেন, “নতুন প্রজন্মের সামনে এখন এত সব বিকল্প যে আমরা আর আশা করতে পারিনা যে তারা এমনিতেই অলিম্পিক দেখতে আগ্রহী হবে। অমাদেরকে এখন তাদের কাছে যেতে হবে।“

অলিম্পিক মশাল তৈরি হয়েছে ২০১১ সালে জাপানে ভূমিকম্পের পর অস্থায়ী বাসস্থানের নির্মাণ কাজের পর ফেলে দেওয়া টুকরো আ্যালুমিনিয়াম দিয়ে।

টোকিও অলিম্পিক আয়োজনে যে বিদ্যুৎ ব্যবহার হবে তা উৎপাদিত হচ্ছে নবায়নযোগ্য জ্বালানি পুড়িয়ে।

অলিম্পিক আয়োজনে খরচ হচ্ছে প্রায় ১৬ বিলিয়ন ডলার, যদিও খরচ ২২ শতাংশ বেড়েছে এক বছর দেরি করার জন্য।

যেসব বিশ্ব তারকার দিকে নজর
আমেরিকান জিমন্যাস্ট সিমোন বাইলস পাঁচ বছর আগে রিও অলিম্পিকসে সাড়া ফেলে দিয়েছিলেন। ২৪-বছরের এই নারী প্রথমবার প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়ে চারটি সোনা এবং একটি ব্রোঞ্জ জেতেন। তিনি টোকিওতে পাঁচটি ইভেন্টেই আবারো অংশ নেবেন তিনি।

দু’জন আমেরিকান সাঁতারু প্রাধান্য বজায় রাখবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। ক্যালেব ড্রেসেলের ব্যাগে এখন পর্যন্ত দুটো স্বর্ণপদক জমা হলেও, ২৪-বছরের এই সাঁতারু টোকিওতে ছ’টি জিতবেন বলে আশা করছে যুক্তরাষ্ট্র। অন্যদিকে রিওতে চারটি সোনা জেতা কেটি লেডেকি ছ’টি ইভেন্টে প্রতিযোগিতা করবেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

সার্বিয়ান টেনিস তারকা নোভাক জোকোভিচ এবছর অস্ট্রেলিয়ান ওপেন, ফ্রেঞ্চ ওপেন এবং উইম্বলডন শিরোপা জিতেছেন। ইউএস ওপেন এবং অলিম্পিক জিতে তিনি গোল্ডেন গ্র্যান্ড স্ল্যামের মত বিরল সম্মান অর্জনের চেষ্টা করবেন।

ট্র্যাক সাইক্লিস্ট দম্পতি জেসন এবং ল্যরা কেনি ব্রিটেনের এবারের অলিম্পিক দলের সবচেয়ে বড় দুই তারকা। জেসনের ঝুলিতে এখনই ছ’টি স্বর্ণপদক। অন্যদিকে চারটি সোনা জেতা ল্যরা এখন পর্যন্ত ব্রিটেনের সবচেয়ে সফল নারী অলিম্পিয়ান নজর থাকবে এই দম্পতির দিকে। মাত্র ১৩-বছর বয়সী ব্রিটিশ স্কেটার স্কাই ব্রাউনও টোকিওতে নজর কাড়বেন।

বিজয়বাংলা/এনএম/২৪/৭/২১

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন