লন্ডন ব্রীজে আজান: বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছিলেন শফিক

বিজয়বাংলা ডেস্ক
প্রকাশিত ৭, সেপ্টেম্বর, ২০২১, মঙ্গলবার
<strong>লন্ডন ব্রীজে আজান: বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছিলেন শফিক</strong>

লন্ডন ব্রীজে আজান দিয়ে শফিক বেশ প্রশংসা কুড়িয়েছিলেন।

মার্কিন সংগীত শিল্পী জেনিফার গ্রাউত ইসলাম গ্রহণ করার পর বলেন, আজানের সুরই সর্বপ্রথম আমাকে ইসলাম গ্রহণে অনুপ্রাণিত করে।

গাইবান্ধার রিভার্টেড মুসলিমা নার্গিস ফাতেমার প্রথম মুগ্ধতা ছিল আজানে।

জাপানের নিমুরো দ্বীপ থেকে শুরু হওয়া ফজরের আজান আ্যমেরিকার আলাস্কার শেষ প্রান্ত পর্যন্ত প্রায় সাড়ে নয় ঘন্টা যাবত চলতে থাকে।

ফজরের আজানের সুরে ইন্দোনেশিয়া যখন জাগছে আ্যমেরিকায় তখন মাগরিব।

ফজরের আজানের বার্তা আটলান্টিকের উপকূলে পৌঁছাতে পৌঁছাতে ইন্দোনেশিয়ার পূর্বাঞ্চলে জোহরের আজানের তোড়জোড় শুরু হয়ে যায়। এবং সেটা ঢাকায় পৌঁছানোর পূর্বে শুরু হয়ে যায় আসরের আহ্বান।

কেয়ামাত পর্যন্ত পৃথিবীতে আজান বিহীন কোন একটা মুহুর্তও অতিবাহিত হবেনা।

মনে পড়ে আজারবাইজানের বিস্ময়কর আজান ফুলের কথা!
মার্কিন টিভি চ্যানেল সিএনএন এক প্রতিবেদনে দেখিয়েছিল যেটা শুধু মাত্র আজানের ধ্বনিতেই ফুটে উঠে।
আজান শেষ হলেই চুপসে যায়।

ঠিক সেই ফুলের মতন; আজান না হলে এই পৃথিবী জাগবেনা।
আজানের সুর না পেলে সূর্যোদয় হবেনা।

নেদারল্যান্ডসের ব্লু-মস্কে যখন প্রথম লাউড স্পিকারে আজান দেয়া হয়, তখন বহু অমুসলিম সেখানে ভীড় করেন।
আজানের শেষে তাদের অনেকেই জানান,
“সত্যিই এক অনন্য অনুভূতি। এই আবেগময় মুহূর্ত সারাজীবন মনে থাকবে।”

অনেকে সেটা রেকর্ড করে নিয়ে যায় মাঝেমধ্যে শোনার জন্য।

পৃথিবীর প্রান্তে প্রান্তে আজানের সুরে মাতোয়ারা হয়ে অমুসলিমদের ভীড় জমানোর কথা কিছুদিন পরপরই শুনতে পাই।

রিয়াদের এক শায়েখ আর লক্ষীপুরের অজি উল্লাহদের মত যুগে যুগে পৃথিবীতে অসংখ্য মানুষ আজানের প্রেমে মাতোয়ারা হয়ে বিশ-ত্রিশ-চল্লিশ এমনকি ষাট বছর পর্যন্ত বিনা বেতনে আজান দেওয়ার নজীর গড়েছেন।

আজানের সুর সম্প্রীতির সুর!
আজানের আহ্বান কল্যানের আহ্বান!!

অর্থ বুঝলে এটা মধুর চেয়ে মিষ্ট; প্রেমিকার গলার চেয়ে সুললিত!

তাইতো আজানের সুরে পাগল হয়ে বিশ্বসেরা কবিরা হৃদয় নিংড়ানো কবিতা লিখেছেন।

আমরা কঠিনভাবে কারো প্রেমে মজে গেলে বলি, মরার পরও তোমার কাছে থাকতে চাই।

তাইতো জাতীয় কবি গেয়েছেন-
মসজিদেরই পাশে আমার কবর দিও ভাই।
যেন গোরে থেকেও মোয়াজ্জিনের আজান শুনতে পাই! (সংগৃহিত)

বিজয়বাংলা/এনএ/৭/৯/২১

শেয়ার করে ছড়িয়ে দিন
  • 25
    Shares